পারমাণবিক অস্ত্রের অধিকারী হতে চায় মিয়ানমারের জান্তা সরকার!

আন্তর্জাতিক

১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২। অনলাইন সংস্করণ

মিয়ানমারের জান্তা সরকারের প্রধান মিন অং হ্লাইং সম্প্রতি রাশিয়া সফরে গিয়েছিলেন। পরমাণু অস্ত্র অর্জন এ সফরের অন্যতম একটি উদ্দেশ্য ছিল বলে মিয়ানমারের সংবাদমাধ্যম ইরাবতীর এক নিবন্ধে দাবি করা হয়েছে

এর মাধ্যমে তার পূর্বসূরি দেশটির আরেক জান্তা শাসক থান শোয়ের অধরা স্বপ্ন পূরণ করতে যাচ্ছেন মিয়ানমারের জান্তা সরকারের প্রধান।

সর্বশেষ রাশিয়া সফরে মিন অং হ্লাইং রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় শক্তি সংস্থা রোসাটমের প্রধান অ্যালেক্সেই লিখাশেভের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তারও আগে গত জুলাই মাসেই রাশিয়ায় একটি ব্যক্তিগত সফরের সময় অ্যালেক্সেই লিখাশেভের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি।

ওই সময় মিয়ানমারে পারমাণবিক শক্তি ব্যবস্থাপনার বিষয়ে প্রশিক্ষণের জন্য রাশিয়া-মিয়ানমারের একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছিল। সর্বশেষ সফরে মিয়ানমারে সম্ভাব্য একটি মডুলার নিউক্লিয়ার রিয়্যাক্টর স্থাপনের ব্যাপারে রোসাটমের সঙ্গে একটি চুক্তি হয়েছে।

এসব ঘটনার পরম্পরাই মূলত আবারও বিষয়টিকে সামনে এনেছে। প্রশ্ন উঠেছে, মিয়ানমার কি তাহলে রাশিয়ার সহায়তায় পরমাণু অস্ত্র অর্জন করতে চায়?

যদিও জান্তা সরকারের মুখপাত্র মেজর জেনারেল জাও মিন তুন সাংবাদিকদের বলেছেন, এই প্রকল্প কেবলই শান্তিপূর্ণ উপায়ে পরমাণু শক্তি অর্জনের লক্ষ্যে। তবে আশঙ্কার বিষয় হলো এটাই প্রথমবার নয় যে, রোসাটম ও জান্তা সরকার পরমাণু শক্তি প্রকল্প নিয়ে একসঙ্গে কাজ করার ঘোষণা দিচ্ছে।

এর আগেও একাধিকবার এমন ঘোষণা এসেছে। সেটা ২০০৭ সালে। তবে যুক্তরাষ্ট্র এবং আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থার (আইএইএ) বাধায় তা আর কার্যকর হয়নি।

প্রায় দুই দশক আগে তৎকালীন শাসক থান শোয়ে তার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক মন্ত্রী উ থাংকে বলেছিলেন, ‘যদি সম্ভব হয় তবে একটি পারমাণবিক বোমা বানাও। এমনকি তা বেলের মতো আকারের হলেও প্রথমে সমস্যা নেই।’

এরপর প্রায় দুই দশক পেরিয়ে গেলেও মিয়ানমার থান শোয়ের সেই স্বপ্ন ত্যাগ করেনি। বরং শোয়ের পছন্দের মিন অং হ্লাইং সেই স্বপ্নকে এগিয়ে নিতে আগ্রহী।

২০১৬ সালে মিয়ানমারের সরকার নিউক্লিয়ার টেস্ট ব্যান ট্রিটি স্বাক্ষর করে। কিন্তু ২০২১ সালে সু চির সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতায় আসা জান্তা বাহিনীর পরমাণু অস্ত্রের আকাঙ্ক্ষা ক্রমশ বাড়ছে। বিশেষ করে বিশ্বে প্রায় বিচ্ছিন্ন অবস্থানে থাকা রাশিয়ার সহায়তায় মিয়ানমার নতুন করে এই বিষয়ে আবারও স্বপ্ন দেখছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.